শনিবার বারসাত স্টেডিয়ামে কোলকাতা লীগের ম্যাচে বিশ্বজিত ভট্টাচার্যের মহামেডান স্পোর্টিং এর মুখোমুখি হয়েছিল ফুজাতোপের পিয়ারলেস এসসি। এই ম্যাচে পিয়ারলসকে ৫-২ গোলে হারয়ে দিয়ে কোলকাতা লীগে নিজেদের জয়ের ধারা অব্যাহত রাখল ব্লাক পান্থার্সরা। পড়ে নিন এই ম্যাচের ম্যাচ রিপোর্ট.

পাঠচক্রের বিরুদ্ধে হার দিয়ে অভিযান শুরু করলেও পরের দুই ম্যচে দুর্দান্ত ঘুরে দাড়িয়েছে সাদা কালো বাহিনী, তবে ম্যাচ জিতলেও এতদিন অনেকটা রান্নায় নুন কমের মতোই তাদের খেলায় অভাব ছিল ডিপান্ডা ডিকার পারফরমেন্স! দল জিতলেও সমর্থকেরা হতাশ ছিলেন তার খেলায়। সেই প্রথম ম্যাচে দুই গোল করিছেলেন ডিকা আর তারপরে কাটিয়েছেন দুটি সাধারন এর থেকে নিম্নমানের ম্যাচ। তবে আজ সমর্থকদের সেই আক্ষেপ মিটিয়ে দিলেন তিনি, আজ শুধু গোল করে দলকে জেতালেনই না সম্পূর্ন করলেন নিজের হাটট্রিকটাও! ডিপান্ডার তিন গোল আর বঙ্গ ব্রিগেডের দাপটে ৫-২ গোল জয় লাভ করলো মহামেডান স্পোর্টিং।  

Also Read: SAFF U-15 Championship 2017 Final Live Streaming: Nepal Vs India

এই ম্যাচের ফলাফল ৫-২ দেখে মনে হতে পারে রীতিমতো পুরো ম্যাচ দাপট দেখিয়ে খেলে পিয়ারলেসকে উড়িয়ে দিয়েছে মহামেডান তাহলে তা ভুল হবে, এই ম্যাচে প্রথমার্ধে দাপট দেখিয়ে বনাম মহামেডানকে দমিয়ে রেখেছিল রহিম নবির নেতৃত্বাধীন পিয়ারলেস। খেলার প্রথমার্ধে নিজেদের সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি সাদা কালো ফুটবলাররা।ম্যাচের ১৬ মিনিটে  সেই সুযোগেই এগিয়ে যায় পিয়ারলেস। একদা সাদা-কালো জার্সিতে খেলাসুখবিন্দার সিং রহিম নবির দেওয়া পাস থেকে বক্সের বাইরে থেকে ডান পায়ের দুরন্ত শটে এগিয়েদেন পিয়ারলেসকে। তারপরে পিয়ারলেস জমাট বাধে নিজেদের রক্ষনভাগ। যদিও গোল শোধ করার তীব্র প্রচেস্টা চালিয়ে যায় মহামেডান স্পোর্টিং। এরই মধ্যে দুটি ফ্রিকিক পায় মহামেডান স্পোর্টিং যদিও দুটিই কাজে লাগাতে ব্যথ হন এরিক ডিপান্ডা। একটি ফিরে আসে মানব প্রাচীরে লেগে আর একটি উড়ে যায় বারের উপর। তারপরে আর প্রথমার্ধে সমতাফেরানোর জন্য সেরকম সুযোগ তৈরি করতেপারেনি মহামেডান। ১-০ ফলাফলে শেষ হয় প্রথমার্ধের খেলা।

Also Read: BREAKING: Unsettled John Johnson wants to quit Bengaluru FC

এরপর ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে নতুন ছন্দে দেখা যায় মহামেডানকে, একাই জ্বলে ওঠেন গত আই লীগের সর্বোচ্চ গোলদাতা এরিক ডিপান্ডা। আর এই সাদা কালো সাময়িক ঝড়েই কেপে যায় পিয়ারলেস দুর্গ ।দু’দল মিলিয়ে মোট ছ’টি গোল হয় এইঅর্ধে।ম্যাচের ৫১ মিনিটে দীপেন্দু দুয়ারির শটপোস্টে লেগে গোললাইন থেকে ফিরলে হেডে সমতাফেরাতে কোনও ভুল করেননি জিতেন মুর্মু।৫৮ মিনিটে মহামেডানকে এগিয়ে দেন দেন ডিপান্ডাডিকা। ৬৯ মিনিটে তিনিই ৩–১ করেন। ৮৯ মিনিটে ৪–১ করেন দীপেন্দু দুয়ারি।এক মিনিট পরেই পিয়ারলেসের ফ্রান্সিস ব্যবধান কমান। ম্যাচেরইনজুরি সময়ে হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন ডিপান্ডা।
এই নিয়ে চলতি কলকাতা লিগে পাঁচটি গোল করে ফেললেন তিনি।

 পাঁচ গোলে জিতলেও রক্ষণ কিছুটা হলে চিন্তার ভাঁজ ফেলবে মহামেডান কোচ বিশ্বজিৎ ভট্টাচার্যের কপালে।