মোহন বাগান বনাম বেঙ্গালুরু এফসি: ভারতীয় ফুটবলের দুই ক্ষমতাশালী ক্লাবের যুদ্ধ . . .

ম্যাচ প্রিভিউ: মোহনবাগান বনাম বেঙ্গালুরু এফসি! তিন সপ্তাহের বিরতির পরে শুরু হতে চলেছে আই লীগের দ্বিতীয় অর্ধ, এই অর্ধের প্রথম ম্যাচে ১০ এপ্রিল কোলকাতার রবীন্দ্র সরোবর স্টেডিয়ামে গতবারের রানার্স মোহনবাগানের মুখোমুখি হতে চলেছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বেঙ্গালুরু এফসি! আসুন দেখে নেওয়া যাক এই ম্যাচের আগে কে কোথায় দাঁড়িয়ে, কারা পাল্লা কোনদিকে ভারি আর কে বা কোথায় পিছিয়ে! গতবারের চ্যাম্পিয়ন বেংগালুরু প্রতিবার এর মতো

এই আইলীগও ফেভারিটের তকমা নিয়ে শুরু করলেও যত লীগ গড়িয়েছে ততই পিছিয়ে গেছে চ্যাম্পিয়নশিপের রেস থেকে। প্রথম একাদশের ৫ প্লেয়ার বদল, নতুন ডিফেন্ডার সই বা চতুর্থ বিদেশি বদল টিমকে জয়ে ফেরাতে কিছুই বাদ রাখেননি কোচ আলবার্তো রোকা, কিন্তু ফলাফলের বিশেষ কিছু পরিবর্তন হয়নি। প্রথম পর্বের ১৩ ম্যাচের মধ্যে বেঙ্গালুরু জিতেছে ৪ টি, হেরেছে ৩ টি এবং ড্র করেছে ৬ টি, ১৮ পয়েন্ট নিয়ে লীগ টেবিলের ৫ নম্বরে রয়েছে সুনীল ছেত্রিরা!

অন্যেদিকে সঞ্জয় সেনের হেভিওয়েট মোহনবাগান শুরু থেকেই নিজেদের ফর্মে, টানা ৮ ম্যাচ অপরাজিত থাকার পর তাদের বিজয় রথ থেমে যায় চার্চিল ব্রাদার্সের কাছে! বাকি দলগুলির থেকে ২ ম্যাচ কম খেলে ১২ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট নিয়ে লীগ টেবিলের তৃতীয় স্থানে রয়েছে মোহনবাগান, যার মধ্যে জয় ৬ টি, ড্র ৫ টি এবং হেরেছে ১ টি!

এই আইলীগের সাপ-লুডোর লড়াইতে চ্যাম্পিয়নশিপ এর দৌড়ে টিকে থাকার জন্য যেমন মোহনবাগানকে ৩ পয়েন্ট পেতেই হবে ঠিক তেমনই নিজেদের স্থান ধরে রাখতে, নিজেদের সুনাম বজায় রাখতে অন্তত ১ পয়েন্ট নিয়ে ফিরতেই হবে বেঙ্গালুরুকে! এখনও পর্যন্ত এই দুই দল মুখোমুখি হয়েছে ৯ বার যার মধ্যে মোহনবাগান জিতেছে ৩ টি, বেঙ্গালুরু ২ টি এবং ৪ টে ম্যাচ অমীমাংসিত থেকেছে! চলতি মরশুমে সঞ্জয় সেন এবং আলবার্তো রোকার সাক্ষাত হয়েছে ২ বার, আই লীগে কান্তিরাভা স্টেডিয়ামে ১০ জনের মোহনবাগান আটকে দিয়েছিল রোকার দলকে এবং দুই সপ্তাহ বাদে এএফসি কাপের ম্যাচে পিছিয়ে পরেও জয় ছিনিয়ে নিয়েছে বেঙ্গালুরু!

মোহনবাগান এর জন্যে খারাপ খবর তাদের প্রথম গোলকিপার যে ফ্যানদের কাছে সেভজিত নামে পরিচিত সেই দেবজিত মজুমদার চোটের জন্যে খেলতে পারবেনা এই ম্যাচ তার যায়গায় গোল এ থাকবেন মোহনবাগানের আই লীগ জয়ের অধিনায়ন অভিজ্ঞ শিলটন পাল। তবে সুখবর এই যে চোট ফিরিয়ে দলে ফিরতে পারেন প্রনয় হালদার, এছাড়া হয়তো বিশেষ কিছু পরিবর্তন করবেন না সঞ্জয় সেন।

অন্যদিকে আশা করা যাচ্ছে কোচ রোকা হয়তো তার দলে বিশেষ কিছু পরিবর্তন আনবেন না, অপরিবর্তিত থাকবে বেংগালুরুর প্রথম একাদশ। বেংগালুরু এর ট্রিপল ‘জে’ অর্থাৎ ” ঝিংগন – জুয়ান – জনসন” এর কাঁধে থাকবে মোহনবাগান এর ত্রিফলা সনি-কাটসুমি-ডাফি কে আটকানোর দায়িত্ব, তেমনই আনাস এবং এডুয়ার্ডো এর সামনে কঠিন চ্যালেঞ্জ সুনীল-ভিনিত জুটিকে আটকে দেওয়ার!

তবে এদের বাইরে মোহনবাগান এর জেজে ও বলওয়ান্ত বা লুরুর উদন্ত বা লেনি পিছন থেকে এসে জালে যখন তখন বল জড়িয়ে দিতে পারে, তাই প্রীতম কোটাল বা শুভাশিস বোস কিম্বা বাঙ্গালোরের নিশু কুমারের কাজটা সহজ হবে না, সর্বদা সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে বলের উপর। চলতি আই লীগে মোহনবাগানের হয়ে সর্বচ্চো গোল করেছেন ডারেল ডাফি এবং ব্যাংগালোর এর সি কে ভিনিত, দুজনেরই গোল সংখ্যা ৬।

এছাড়াও সুনীল ছেত্রি, জেজে এবং বলওয়ান্ত প্রত্যেকের নামেই রয়েছে ৪ টি করে গোল! এখন দেখার ১ লা এপ্রিল গোলটা আসে কার বুট থেকে! ব্যাংগালুরু কি শেষ এএফসি ম্যাচের পুনরাবৃত্তি করতে পারবে নাকি মোহনবাগান প্রতিশোধ নেবে কান্তিরাভার পরাজয় এর দেখার জন্যে চোখ রাখতে হবে টেন ২ এর পর্দায় বিকেল ৪:৩৫ এ।

মিস করবেন না সঞ্জয় সেন বনাম আলবার্তো রোকার এই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই কারন এই ম্যাচের রেজাল্টের দিকে শুধু মোহনবাগান বা বেঙ্গালুরু তাকিয়ে নেই, এই ম্যাচের দিকে চোখ থাকবে লীগটেবিলে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের ঠিক উপরে থাকা দল ইস্টবেঙ্গল এবং আইজল, কারন মোহনবাগান পয়েন্ট হারালে যে কিছুটা হলেও স্বস্তিতে থাকবে এই দুই দল।